HomeE365Business Idea: সরকারের সহায়তায় শুরু করুন এই ৫ টি ব্যবসা, আয় হবে...

Business Idea: সরকারের সহায়তায় শুরু করুন এই ৫ টি ব্যবসা, আয় হবে লক্ষ লক্ষ টাকা।

বর্তমান জীবনে টিকে থাকতে গেলে প্রত্যেক মানুষকেই উপার্জন করে নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে স্বাবলম্বী হতে হয়। বর্তমানে চাকরির বাজার ক্রমশ সংকুচিত হয়ে আসায় বহু মানুষ ব্যবসার দিকে ছুটছেন। অনেকের নিজস্ব পুঁজি আছে, নিজেদের পুঁজি বিনিয়োগ করেই ব্যবসাতে মন দিচ্ছেন তারা। আবার অনেকের কাছে ব্যবসা শুরু করার মত টাকা-পয়সার না থাকায় মনের মত ব্যবসা শুরু করতে পারে না তারা। আবার অনেকের কাছে টাকা থাকলেও, ব্যবসা সম্পর্কিত জ্ঞান কম থাকার কারণে ব্যবসার পথে এগোতে তারা সাহস পায় না।

বর্তমানে বহু মধ্যবিত্ত পরিবারের মধ্যে ছোটখাটো ব্যবসা করার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। অনেকেই মূলধন বিনিয়োগের ক্ষেত্রে পিছিয়ে যাচ্ছেন। তবে আপনি হয়তো জেনে অবাক হবেন যে সরকারি সাহায্যের মাধ্যমেই আপনি আপনার ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। এবং ব্যবসার মাধ্যমে আপনি প্রত্যেক মাসে প্রচুর টাকা লাভ করতে পারবেন।

আজকে আপনাদের এমন পাঁচটি বিজনেস আইডিয়া সম্পর্কে জানাবো যেগুলি আপনারা সরকারি সাহায্যের মাধ্যমে করতে পারবেন। সরকার আপনাকে এই ব্যবসা গুলি করার জন্য লোন হিসেবে টাকা দেবে। এবং আপনি পরে লাভের টাকা দিয়ে খুব সহজেই এই লোন পরিশোধ করতে পারবেন। ব্যবসা সম্পর্কিত লোন যদি সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয় সেক্ষেত্রে সুদের হারও হয় খুব কম। তাই দেরি না করে খুব শীঘ্রই আপনারা এই ব্যবসা গুলি শুরু করতে পারেন।

পশুখাদ্য ব্যবসা:

আমাদের হয়তো অনেকের বাড়িতেই পোষা জীবজন্তু নেই, তবে পারিপার্শ্বিক জায়গাগুলিতে দেখলে দেখা যাবে যে অনেকের বাড়িতেই গরু ছাগল বা বিভিন্ন রকম পশুপাখি থাকে। পশুদের খাবার যোগান দিতে এবং দুধের পরিমাণ বাড়াতে পশু খাদ্য প্রয়োজন হয় বিপুল পরিমাণে। মালিকরা তাদের পোষ্যর স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে এবং দুধের পরিমাণ বাড়াতে ভালো পশু খাদ্য খাওয়ায়। আপনি যদি কোন চাষযোগ্য জমিতে জোয়ার, বাজরা, ভুট্টা, ঢেঞ্চা, ওটস, বেরসিম, কাউপিয়া ইত্যাদি পশু খাদ্য ফসল চাষ করতে পারেন তবে আপনি প্রচুর টাকা উপার্জন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনি সরকারি সাহায্যের মাধ্যমেও চাষ শুরু করতে পারবেন।

দুধ সংগ্রহ কেন্দ্র:

স্থানীয় দুধওয়ালাদের কাছ থেকে আপনি যদি দুগ্ধ সংগ্রহ করার একটি কেন্দ্র খুলতে পারেন তবে সেখান থেকেও আপনি মাসে প্রচুর পরিমাণে উপার্জন করতে পারবেন। গোয়ালাদের কাছ থেকে সরাসরি দুধ সংগ্রহ করে মার্কেটে মুনাফার সাথে দুধ বিক্রি করা যায়। এছাড়া আপনি যদি দুধের ডেয়ারি বা মিল্ক পয়েন্ট বা মিল্ক সেন্টার খুলে নিতে পারেন, সে ক্ষেত্রে আপনার আয় আরো বেশি হবে।

See also  ঘড়ির দোকানের ঘড়িগুলিতে সবসময় ১০টা বেজে ১০ দেখায় কেন? জানুন আসল কারণ।

দুগ্ধজাত পণ্যের ব্যবসা:

দুগ্ধজাত পণ্য বিক্রয় করেও প্রচুর টাকা উপার্জন করা যায়। বাজারের দুধ এবং দুগ্ধজাত পণ্যের চাহিদা বরাবরই সবসময় তুঙ্গে থাকে। দুধ থেকে অনেক ধরনের জিনিস তৈরি হয়, সেজন্য বাজারে দুধের চাহিদা সবথেকে বেশি। দুধের ব্যবসা যদি আপনি শুরু করতে চান সেক্ষেত্রে সরকার ঋণ এবং ভর্তুকি দেয়। NABARD প্রকল্পের পলিসি অনুযায়ী, সাধারণ ব্যবসায়ীরা ২৫ শতাংশ এবং তপশিলি জাতির ব্যবসায়ীরা ৩৩ শতাংশ পর্যন্ত ভর্তুকি পান। আপনি যদি দুগ্ধজাত পণ্যের ব্যবসা শুরু করতে চান সেক্ষেত্রে আপনি ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোন পেতে পারেন।

আইসক্রিমের ব্যবসা:

এখন শীতকাল বলে আইসক্রিমের চল ততটা নেই। তবে গরম পড়লেই আইসক্রিমের চাহিদা হু হু করে বেড়ে যায়। এছাড়া শীতকালেও বড় বড় অনুষ্ঠান বাড়িতে আইসক্রিমের দরকার পড়ে। আইসক্রিম পার্লার খুলেও আপনি মাসে প্রচুর টাকা উপার্জন করতে পারবেন। এগ্রি বিজনেস বা এগ্রি স্টার্ট আপ স্কিমের অধীনে আপনি আইসক্রিম ব্যবসার শুরু করলে অর্থসাহায্য পাবেন। এছাড়া বড় কোন কোম্পানির সাহায্যে আপনি অর্গানিক আইসক্রিম এর ব্যবসাও খুব সহজেই শুরু করতে পারবেন।

See also  ঘড়ির দোকানের ঘড়িগুলিতে সবসময় ১০টা বেজে ১০ দেখায় কেন? জানুন আসল কারণ।

চকলেটের ব্যবসা:

শিশু থেকে বয়স্ক সকলেরই চকলেট পছন্দের তালিকাতে থাকে। বাজারের বিভিন্ন দোকানের দিক দেখলে আমরা বিভিন্ন ধরনের চকলেট দেখতে পাই। আমুল, ডেয়ারির মতো আরও বড় বড় কোম্পানি চকলেট তৈরির বাজারে রাজ করছে। লোকাল লেভেলে অনেক ছোট ছোট ব্র্যান্ডও এই ব্যবসা থেকে প্রতি মাসে প্রচুর টাকা উপার্জন করছে। আপনি চাইলে নিজের ব্র্যান্ড তৈরি করেও চকলেট তৈরির ব্যবসা শুরু করতে পারেন। কাঁচা চকলেট তৈরি করে বড় বড় নামী কোম্পানিগুলিতে বিক্রি করেও আপনি লাভ করতে পারবেন। এই ব্যবসায় আপনার লোকসান হবে না, বরঞ্চ দিনে দিনে আপনার চকলেটের চাহিদা এবং উপার্জন বাড়তে থাকবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

RELATED ARTICLES

Most Popular