HomeJob updatesখাদ্য দপ্তরে ৪৮০টি শূন্যপদের জন্য আবেদনকারীর সংখ্যা ১৩ লক্ষ, সর্বশেষ আপডেট জানুন।

খাদ্য দপ্তরে ৪৮০টি শূন্যপদের জন্য আবেদনকারীর সংখ্যা ১৩ লক্ষ, সর্বশেষ আপডেট জানুন।

কিছুদিন আগেই প্রকাশ পেয়েছে রাজ্যের খাদ্য দপ্তরে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি। বহুদিন ধরে রাজ্যের চাকরি প্রার্থীরা রাজ্যের ফুড সাব ইন্সপেক্টর(WB Food SI Exam) পরীক্ষার জন্য অপেক্ষা করে আসছেন। অবশেষে সমস্ত চাকরির প্রার্থীদের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (PSC) পক্ষ থেকে ফুড এস আই পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছিল 22/08/2023 তারিখে।

Food Si পদে আবেদনের জন্য প্রথমে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে রেজিস্টার করতে হবে। wbpsc.gov.in ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। এর পূর্বে যাদের এনরোলমেন্ট অলরেডি করা আছে, তাদেরও নতুন করে রেজিস্টার করতে হবে। দেখা গেছে এই বছর ফুড এসআই পদে মোট শূন্যপদ রয়েছে ৪৮০ টি, তবে ১৩ লক্ষেরও বেশি চাকরিপ্রার্থী Food SI পদের জন্য আবেদন করেছেন।

Food SI Recruitment এ দুটি ধাপের মাধ্যমে প্রার্থীদের নিয়োগ করা হয়। প্রথমে একটি ১০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা হবে, যেখানে mcq ভিত্তিক প্রশ্ন থাকবে। উত্তীর্ণ প্রার্থীদের একটি ইন্টারভিউ নেওয়া হবে, যেটির পূর্নমান থাকবে ২০। সেই ভিত্তিতেই যোগ্য প্রার্থীদের নিয়োগ করা হবে।

সূত্রের খবর ৪৮০ টি শূন্যপদের জন্য এখনো পর্যন্ত আবেদন জমা পড়েছে ১৩ লক্ষেরও বেশি। গত মাসের ২৩ আগস্ট থেকে চলতি মাসের ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অনলাইনের মাধ্যমে এত সংখ্যক আবেদন জমা পড়েছে। শেষবার ২০১৮ সালে এই নিয়োগের পরীক্ষা হয়েছিল। তারপর দীর্ঘ পাঁচ বছর পর আবার ফুড সাব-ইন্সপেক্টর পদে নিয়োগ হতে চলেছে।

See also  রাজ্যে প্রচুর শূন্যপদে ফরেস্ট ভলেন্টিয়ার নিয়োগ করা হবে। মাস গেলে মিলবে ১২ হাজার টাকা বেতন। 

২০১৮ সালের ফুড এস আই পরীক্ষার সময় মোট আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল প্রায় 11 লক্ষ। বেশিরভাগেরই ডিগ্রী ছিল উচ্চমানের। ইঞ্জিনিয়ারিং, বিএ, এমএ ডিগ্রিধারীরাও এই পদের জন্য আবেদন করেছিলেন। ২০১৮ সালের পর মধ্যবর্তী সময়ে করোনাভাইরাস তার থাবা বসিয়েছিল। বহু মানুষ কর্মচ্যুত হয়েছেন, মানুষের জীবনযাত্রায় অনেক বদল এসেছে। এজন্য সরকারি চাকরি পাওয়ার তাগিদ আগের থেকে অনেকটাই বেশি। এই কারণেই এত সংখ্যক আবেদনপত্র জমা পড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

খাদ্য দপ্তরের সাব ইন্সপেক্টর পদে নিয়োগের পরীক্ষায় যাতে কোনরকম দুর্নীতি না হয় তাই নিয়ে তৎপর রাজ্যের পাবলিক সার্ভিস কমিশন। মূলত রাজ্যের পাবলিক সার্ভিস কমিশনের পক্ষ থেকেই এই পরীক্ষার আয়োজন করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে রাজ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতি নিয়ে উত্তপ্ত অবস্থা। নিয়োগ দুর্নীতি সংক্রান্ত একাধিক মামলা চলছে হাইকোর্ট এবং সুপ্রিমকোর্টে। তাই দুর্নীতিমুক্ত নিয়োগ প্রক্রিয়াও এবছর পাবলিক সার্ভিস কমিশনের অন্যতম একটি বড় লক্ষ্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

RELATED ARTICLES

Most Popular